ঢাকা, মঙ্গলবার, ২১ জানুয়ারী ২০২০

বাণিজ্য মেলায় খণ্ডকালীন চাকরি পেতে চাইলে

:: রাসেল মাহমুদ || প্রকাশ: ২০১৯-১১-১৫ ১৯:১১:০৮

আসছে ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা-২০২০। প্রতিবছরের মতো এ বছরও মেলা চলবে পুরো জানুয়ারি মাস ধরে। মাসব্যাপী চলা এ মেলায় প্রতিবছরই মেলে খণ্ডকালীন চাকরির সুযোগ। সাধারণত কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরাই মেলায় বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের হয়ে খণ্ডকালীন কাজ করে থাকেন।

প্রতিষ্ঠানগুলোও নিজেদের পণ্য বিক্রয় ও সঠিকভাবে উপস্থাপন করার জন্য নিয়মিত কর্মীর পাশাপাশি বিপুলসংখ্যক চুক্তিভিত্তিক কর্মী নিয়োগ করে থাকে।

প্রতিবারের মতো এ বছরও ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলায় অংশ নেবে প্রচুর দেশি-বিদেশি প্রতিষ্ঠান। এসব প্রতিষ্ঠানের মধ্যে অনেকেই ইতিমধ্যে কর্মী নিয়োগপ্রক্রিয়া শুরু করেছে। আর ভালো প্রতিষ্ঠানে নিয়োগ পেতে রাখতে হবে খোঁজ।

নিয়োগের জন্য পত্রিকায় তেমন একটা বিজ্ঞপ্তি দেওয়া হয় না। ব্যক্তিগত যোগাযোগের মাধ্যমেই বেশির ভাগ প্রতিষ্ঠান নিয়োগ দিয়ে থাকে। এছাড়া প্রতিষ্ঠানগুলো তাদের ওয়েবসাইট, ফেসবুক পেজেও বিজ্ঞাপন দেয়। এছাড়া বিভিন্ন চাকরি প্রদানকারী এবং চাকরিপ্রত্যাশীদের ফেসবুক গ্রুপের মাধ্যমেও লোক নিয়ে থাকে।

২০১৯ সালের বাণিজ্যমেলায় খণ্ডকালীন কাজ করেছেন আদনান শরীফ। তিনি বলেন, বাণিজ্য মেলায় সাধারণত খণ্ডকালীন কর্মী নিয়োগের ক্ষেত্রে শিক্ষার্থীদেরই বেশি অগ্রাধিকার দেওয়া হয়। বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান তাদের ওয়েবসাইটে বিজ্ঞপ্তি নিয়ে কর্মী নিয়োগ করে। আবার অনেক প্রতিষ্ঠান অভ্যন্তরীণ যোগাযোগের ভিত্তিতে কর্মী নিয়োগ দেয়।

তিনি বলেন, নিয়োগ পেতে হলে প্রতিষ্ঠানগুলোর ওয়েবসাইটের পাশাপাশি জবসাইটগুলোতে চোখ রাখা যেতে পারে।

প্রাণ আরএফএল গ্রুপের একজন কর্মকর্তা বলেন, ইতিমধ্যে আমরা ২৫০ জন কণ্ডকালীন কর্মী নিয়োগের জন্য বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছি। আগ্রহীরা আগামী ৬ ডিসেম্বর পর্যন্ত আবেদন করতে পারবেন।

বাণিজ্য মেলায় কাজ করার জন্য শুধু শিক্ষাগত যোগ্যতা থাকলে হয় না। থাকতে হবে কিছু বাড়তি যোগ্যতাও। যোগাযোগের দক্ষতা, উপস্থাপনার কৌশল, স্মার্টনেস, উপস্থিত বুদ্ধিমত্তা, ব্যক্তিত্ব ইত্যাদি বিষয়গুলো নিয়োগ পেতে খুব সহায়তা করে।

বাণিজ্য মেলায় এক মাস খণ্ডকালীন চাকরির জন্য কর্মীরা প্রতিষ্ঠানভেদে ১০ থেকে ৩৫ হাজার টাকা পর্যন্ত আয় করতে পারেন। এ ছাড়া সকালের নাশতা, দুপুরের খাবার, বিকেলের নাশতা, রাতের খাবার, প্রতিষ্ঠানভেদে মোবাইল খরচ এবং যাতায়াত খরচও দেওয়া হয়।

এর বাইরে কেউ চাইলে এক মাসের কাজের অভিজ্ঞতা সনদও দেওয়া হয়, যা পরবর্তী সময়ে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানে বা অন্য কোথাও চাকরির ক্ষেত্রে আবেদনপত্রে অভিজ্ঞতা হিসেবে দেখানো যায়।