ঢাকা, বুধবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২০

সাক্ষাৎকারে বিডি স্টিল বিল্ডিং ডিজাইন এন্ড ডেভেলপমেন্ট লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক

আত্মবিশ্বাস আমাকে প্রতিষ্ঠিত করেছে

:: রাসেল মাহমুদ || প্রকাশ: ২০২০-০১-০১ ২৩:৫৭:৪১

ইঞ্জিনিয়ার মো. আবদুস সালাম। বিডি স্টিল বিল্ডিং ডিজাইন এন্ড ডেভেলপমেন্ট লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক। সততার সাথে ব্যবসা করছেন দীর্ঘদিন থেকে। ব্যবসার পাশাপাশি সামাজিক, সাংস্কৃতিক, ধর্মীয় নানা কর্মকাণ্ডে জড়িত রয়েছেন তিনি। সমাজের অনগ্রসর মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে প্রশংসিত হয়েছেন বারবার। চাকরি ছেড়ে কনস্ট্রাকশন ব্যবসা শুরু করলেও বর্তমানে ভোগ্যপণ্য উৎপাদন ও বাজারজাত করছেন। সম্প্রতি শুরু করেছেন এক্সপোট-ইমপোর্ট ব্যবসা।

তরুণ এই ব্যবসায়ী সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকে নিজ এলাকা রাজবাড়ীর পাংশা উপজেলার সরিষা ইউনিয়নে শিক্ষা বিস্তার, দারিদ্র বিমোচন, সামাজিক মূল্যবোধ এবং পারস্পারিক ভ্রাতৃত্ববোধ জাগ্রত করতে কাজ করছেন। তার সরাসরি তত্ত্বাবধায়নে চলছে একাধিক সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান। সমাজের পিছিয়ে পড়া বিভিন্ন মানুষকে সরাসরি সহযোগিতা করে চলেছেন তিনি।

নানা প্রতিকূলতা উপেক্ষা করে বর্তমানে প্রতিষ্ঠিত এই ব্যবসায়ী বরাবরই প্রচারবিমুখ ছিলেন। নিরবে কাজ করতেই বেশি ভালোবাসেন তিনি। চাকরি ছেড়ে ব্যবসায় আসা এবং সাফল্য অর্জনের পিছনে পাড়ি দিতে হয়েছে এক ‘বন্ধুর’ পথ। ব্যবসা-বাণিজ্য ও তার ব্যক্তি জীবন নিয়ে কথা বলেছেন ক্যারিয়ারটাইমস-এর সাথে। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন রাসেল মাহমুদ।

ক্যারিয়ারটাইমস: কেমন আছেন?
ইঞ্জিনিয়ার মো. আবদুস সালাম: ভালো আছি।

ক্যারিয়ারটাইমস: আপনার বর্তমান ব্যবসা সম্পর্কে জানতে চাই।
ইঞ্জিনিয়ার মো. আবদুস সালাম: প্রথমত আমি একজন কনস্ট্রাকশন ব্যবসায়ী। ব্যক্তি জীবনে যেহেতু আমি একজন প্রকৌশলী তাই এই ব্যবসাটা আমার প্রিয় বলতে পারেন। তবে দেশের প্রতি দায়বদ্ধতা থেকে এবং সাধারণ মানুষের জন্য নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিত করতে সম্পতি ভোগ্যপণ্য উৎপাদন এবং তা বাজারজাত করছি। আমি মনে করি, নিরাপদ খাদ্যপ্রাপ্তি মানুষের অধিকার। এই জন্য ভোগ্যপণ্য বিপণন করছি।

ক্যারিয়ারটাইমস: আমি যতোটুকু জানি আপনি বেশ ভালো একটি চাকরি করতেন? চাকরি ছেড়ে ব্যবসায় আসলেন কেনো?
ইঞ্জিনিয়ার মো. আবদুস সালাম: আসলে ছোটবেলা থেকেই মনের মধ্যে নিজে কিছু করার স্বপ্ন লালন করেছি। লেখাপড়া শেষ করে প্রকৌশল সেক্টরে ক্যারিয়ার গড়তে একটি চাকরি শুরু করি। মূলত চাকরিতে জয়েন করার উদ্দেশ্য ছিলো ব্যবসাটা বোঝা। একাডেমিক লেখাপড়ার চেয়ে হাতে-কলমে কাজ করলে অনেক অভিজ্ঞতা অর্জন করা যায়। চাকরি সূত্রে টানা দেড় বছর দেশের দ্বিতীয় রাজধানীখ্যাত চট্টগ্রামে থেকেছি। সেখানে থাকতেই বিভিন্ন মানুষের সাথে পরিচয় হয়। একসময় সিদ্ধান্ত নিই ব্যবসা শুরু করবো। তারই ফলশ্রুতিতে আজকে আল্লাহ আমাকে এখানে এনেছেন।

ক্যারিয়ারটাইমস: শুরুতে বিশেষ কারো সহযোগিতা পেয়েছিলেন কিনা?
ইঞ্জিনিয়ার মো. আবদুস সালাম: আমার ব্যবসা শুরু করার বিষয়টি বেশ রোমান্সকর। আমি যেখানে চাকরি করতাম সে প্রতিষ্ঠান থেকেই একটা প্রস্তাব পাই। একটি কাজে আমাকে পার্টনার করা হয়। শেষ পর্যন্ত আমি তাতে লাভবান হই। পরে নিজেই প্রতিষ্ঠান করি।

ক্যারিয়ারটাইমস: ব্যবসার পাশাপাশি আর কী কী করছেন।
ইঞ্জিনিয়ার মো. আবদুস সালাম: জীবন ও জীবিকার তাগিদে ব্যবসা করতে হয়। এর বাইরে আরও অনেক কাজই করতে হয়। দেশের প্রতি দায়বদ্ধতা, সমাজের প্রতি দায়বদ্ধতা এগুলোতো এড়িয়ে যাওয়ার সুযোগ নেই। ফলে এগুলো নিয়েও কাজ করছি।

ক্যারিয়ারটাইমস: আমি শুনেছি, আপনার নিজ এলাকার মানুষের মধ্যে পারস্পারিক সম্পর্ক উন্নয়নে কাজ করছেন। কীভাবে করছেন?
ইঞ্জিনিয়ার মো. আবদুস সালাম: বিষয়টি আসলে ভ্রাতৃত্ববোধ জাগ্রতের জন্য কিনা জানিনা। তবে আমি সব সময়ই চেয়েছি, মানুষ শান্তিতে বসবাস করুক। বিভিন্ন সময় গ্রামের সাধারণ মানুষ অসুস্থ রাজনীতির সাথে জড়িয়ে পড়ে নিজের এবং পরিবারের ক্ষতি ডেকে আনে। আমার এলাকার মানুষ প্রকৃতিগতভাবেই সহজ-সরল। একটা সময় গ্রামের মানুষ নির্বিঘ্নে চলাফেরা করতো। পরস্পরের মধ্যে ভালোবাসা ছিলো, মায়া ছিলো, দায়িত্ববোধ ছিলো। আকাশ সংস্কৃতির প্রভাবে এখন গ্রামের সাধারণ সানুষও বেশ ক্রিটিক্যাল বা জটিল সময় পার করছে। এতে প্রতিবেশি বা পাশের মানুষের প্রতি তার দায়বোধ কি তা অনেকাংশেই ভুলতে বসেছে। বিশেষ করে গ্রামীণ সংস্কৃতি এখন প্রায় বিলুপ্তির পথে। এসব বিষয়কে ফিরিয়ে আনতে বা সমুন্নত রাখতে কিছুটা চেষ্টা করছি।

ক্যারিয়ারটাইমস: এ কাজগুলো এগিয়ে নিতে এ পর্যন্ত কী কী করেছেন?
ইঞ্জিনিয়ার মো. আবদুস সালাম: ঠিক কী কী করেছি তা এভাবে বলে বোঝানো যাবে না। তবে ছোট্ট একটি কাজের কথা আপনাকে বলতে পারি। আমাদের দেশিয় খেলা হাডুডু একটা সময় গ্রামীণ সমাজে ব্যাপক প্রচলন ছিলো। গ্রামে হাডুডু খেলার প্রতিযোগিতা হতো। সেই প্রতিযেগিতাকে কেন্দ্র করে বসতো মেলা। মেলায় নানারকম দোকানপাঠ বসতো। বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ আসতো মেলায়। ফলে সব শ্রেণির মানুষের মধ্যে একটা বন্ধন ছিলো। চলতি বছরেই আমি আমার এলাকায় তেমন একটি হাডুডু খেলার আয়োজন করেছিলাম। এই খেলাকে কেন্দ্র করে তেমন একটি মেলার আবহ তৈরি হয়েছিলো। যা আমি আজও ভুলতে পারি না।

এছাড়া বিভিন্ন দিবসে এলাকার তরুণদের দিয়ে নানা সামাজিক-সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডের আয়োজন করে থাকি। ধর্মীয় বিভিন্ন অনুষ্ঠানে যাই। আয়োজন করি। বিষয়টি সরাসরি আমি নিজেই তত্ত্বাবধায়ন করি।

ক্যারিয়ারটাইমস: ব্যবসায়ে কোনো প্রতিকূলতার মুখোমুখি হয়েছেন কিনা?
ইঞ্জিনিয়ার মো. আবদুস সালাম: ব্যবসা মানেই জটিল একটি বিষয়। কখনো ভালো কখনো মন্দ। এই ভালো মন্দের দোলাচলে আমাকে শুরু থেকেই থাকতে হয়েছে। অর্থাৎ পথটা আমার জন্য সব সময় মসৃণ ছিলো না। আমাকে পাড়ি দিতে হয়েছে অনেক বন্ধুর পথও। সহজভাবে বলতে গেলে অনেক প্রতিকূলতা পাড়ি দিয়ে আমাকে এখানে আসতে হয়েছে। নিজের মধ্যে আত্মবিশ্বাস ছিলো। সেই আত্মবিশ্বাসই আমাকে প্রতিষ্ঠিত করেছে।

ক্যারিয়ারটাইমস: যারা এই ব্যবসায় আসতে চায় তাদের জন্য কী পরামর্শ দিবেন।
ইঞ্জিনিয়ার মো. আবদুস সালাম: শুধু কনস্ট্রাকশন ব্যবসা নয়, যেকোনো ব্যবসার শুরুতে অভিজ্ঞতা দরকার। আর এই অভিজ্ঞতা অর্জন করতে হলে সংশ্লিষ্ট সেক্টরে আগে কয়েক বছর চাকরি করা ভালো। এতে ব্যবসা সম্পর্কে একটা স্বচ্ছ ধারণা পাওয়া যাবে। পাশাপাশি ব্যবসা শুরু করতে হলে পরিশ্রমী হতে হবে। একই সাথে ইতিবাচক মানসিকতা লালন করতে হবে। সৎ এবং পরিশ্রমী হলে সফলতা আসবেই।

ক্যারিয়ারটাইমস: আমাদের সময় দেয়ার জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ।
ইঞ্জিনিয়ার মো. আবদুস সালাম: ক্যারিয়ারটাইমসকেও ধন্যবাদ।