ঢাকা, সোমবার, ১০ আগস্ট ২০২০

৩৫ প্রত্যাশীদের মানবিক গণ ভাবনা-৯

:: সিটি রিপোর্ট || প্রকাশ: ২০২০-০১-০৯ ০০:১৪:৩৩

সরকারি চাকরিতে প্রবেশের বয়স ৩০ বছর থেকে বাড়িয়ে ৩৫ বছর করার দাবিতে অনশনরত আন্দোলনকারীরা মানবিক গণ ভাবনা-৯ তুলে ধরেছেন।

বুধবার (৮ জানুয়ারি) বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্রকল্যাণ পরিষদের প্রধান সমন্বয়ক মুজাম্মেল মিয়াজী এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে ভাবনাগুলো জানান।

পাঠকদের জন্য মানবিক গণ ভাবনা-৯ তুলে দেয়া হলো-

নতুন ভাবনায় এই দেশ হল ইশতেহারের দেশ । ইশিতেহার দিয়ে জনগনকে ধোকা দেয় ।

গণতন্ত্রের ক্ষেত্রে ইশতেহার একটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ বিষয় । এটা এক ধরণের গণ মানুষের সাথে বড় অঙ্গীকার । জনগণ যখন কোন প্রতিনিধিকে ভোট দেয় তখন সে নিজ,সমাজ,এলাকার স্বার্থ সহ দেশের কল্যাণের কথা ভাবে । বিশেষ করে নির্বাচনের সময় প্রতিনিধি যে ইশতেহার প্রকাশ করে গণ মানুষ ঐ ইশতেহারকে অনেক গুরুত্ব দিয়ে প্রতিনিধিকে নির্বাচন করে । কিন্তু আজ ইশতেহারের নতুন নাম হতে যাচ্ছে জনগণকে ধোকা এবং বোকা বানানোর কৌশল । যে কৌশল জনগণ খায় এবং প্রতিনিধিও সেই সুযোগ নেয় । এমন ধোকা খেতে খেতে জনগণ আজ অভ্যস্ত হয়ে পড়েছে আর এমনটাই মনে করছে রাজনীতিবীদরা । তাই তারা তাদের দেওয়া ইশতেহার এবং প্রতিশ্রুতি ভুলে যায় । জনগণের প্রতি তাদের দায়িত্ববোধ থাকেনা । অনেক সময় তাঁরা এতটাই অমানবিক হয় যে কঠিন বিপদ আপদে কোন খোঁজ খবরই নেয়না জনগণের ।

আসি মূল কথায় , আপনারা জানেন যে বর্তমান সরকার ক্ষমতা আসার আগে ইশতেহারে রেখেছিল তাঁরা ক্ষমতা আসলে বিচার বিবেচনা করে চাকরিতে আবেদনের বয়সসীমা বৃদ্ধি করবে । আর সে লিখিত কথাটি ২৮ লক্ষ শিক্ষিত যুবক সমাজ বিশ্বাস করেছিল । সেই বিশ্বাসেই আজ আওয়ামীলীগ সরকার ক্ষমতায় । ক্ষমতার এক বছর শেষ হয়ে গেল । ২৮ লক্ষ শিক্ষিত সমাজকে দেওয়া প্রতিশ্রুতি এবং ইশতেহারের কথাও এই সরকার ভুলে গেল । সেই সাথে আমাদের সাথে বিভিন্ন প্রকার তালবাহা আর অজুহাত দেওয়া শুরু করল ।

আপনারা জানেন যে চাকরিতে আবেদনের বয়সসীমা ৩৫ সহ ৪ দফা দাবি আদায়ের লক্ষে “দীর্ঘ এক মাস যাবত কনকনে শীতের মধ্যে” আমরা অনশনে ছিলাম । এই অনশনে করতে গিয়ে বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্রকল্যাণ পরিষদের অনেক সমন্বয়ক ও সদস্য মৃত্যুমুখী হয়েছে । এখনো অনেকে অসুস্থ অবস্থায় আছে । কিন্তু অতিব দুঃখের বিষয় সরকার পক্ষ হতে কোন দায়িত্ববান লোক আমাদের খোঁজ খবর নিতে আসেনি । সরকারের এমন অমানবিক আচরণ ২৮ লক্ষ শিক্ষিত যুব সমাজকে ক্ষুদ্ধ করেছে । নৈতিক দায়িত্ববোধ থেকেও সরকার কোন দায়িত্ববান ব্যাক্তি আমাদের দেখতে আসেনি । গণতান্ত্রিক দেশে এমন অমানবিক আচরনের মাধ্যমে সরকার দায়িত্বহীনতার পরিচয় দিয়েছে ।

যৌক্তিক ৩৫ সহ ৪ দফা দাবি মেনে নিবেন বলেইতো আপনারা ইশতেহারে রেখেছিলেন । পূরনের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন শিক্ষিত তরুণ ও যুব সমাজকে । তবে কেন আজ তালবাহানা করছেন? কেন অপমান,অবজ্ঞা এবং অপদস্ত করছে লক্ষ লক্ষ শিক্ষার্থীকে?

তবে কি ইশতেহারের নামে আমাদের ধোকা দিতে চাচ্ছেন ?
তাহলে জনগণ আজ ভেবে নিবে এই দেশ হল ইশতেহারের দেশ । সরকার জনগণকে ধোকা দেওয়া ইশতেহারের সরকার । আমি বঙ্গবন্ধুর একজন আদর্শ সৈনিক হিসাবে বলতে চাই ।

সোনার বাংলা গড়তে হলে অতি দ্রুত ২৮ লক্ষ শিক্ষিত যুব সমাজের যৌক্তিক ৩৫ সহ ৪ দফা দাবি মেনে নিন । আর তা না হলে ওরা যখন আপনাদের থেকে মুখ ফিরিয়ে নিবে তখন আর টেনেও আনার সুযোগ পাবেন না ।

জয় বাংলা
জয় হোক মানবিক গণ ভাবনার
জয় হোক মানবতার ।