ঢাকা, শুক্রবার, ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০

ঢাবি বন্ধুসভার সভাপতিকে মারধরের অভিযোগ

:: ঢাবি প্রতিনিধি || প্রকাশ: ২০২০-০১-২১ ১৬:৫৫:৪৬

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধুসভার সভাপতি এবং কবি মম জামিত কে মারধরের অভিযোগ উঠেছে চৈতালী বাসে চলাচল করা কয়েকজন শিক্ষার্থীর বিরুদ্ধে। মারধরের সাথে জড়িত একজনের নাম আমিনুল ইসলাম তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ম্যানেজমেন্ট এন্ড ইনফরমেশন বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী। মারধরের শিকার মম জামিত মনোবিজ্ঞান বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী।

মঙ্গলবার (২১ জানুয়ারি) মিরপুর থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়গামী সাড়ে নয়টার চৈতালি বাসে এ মারধরের ঘটনা ঘটে। মারধরের শিকার কবি মম জামিত প্রক্টর বরাবর লিখিত অভিযোগ পত্র দাখিল করেছেন।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে মারধরের শিকার কবি মম জামিত ক্যারিয়ারটাইমস২৪.কমকে বলেন, আমি শ্যামলী থেকে চৈতালি বাসে উঠতে চাইলে আমি সহ আরো কয়েকজন কে তারা উঠতে বাধা দেয় এবং পরবর্তীতে তারা আমার পরিচয় জানতে চায়। আমি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী কিনা তারা এর প্রমাণ চায়। এর প্রেক্ষিতে আমি তাদের আমার আইডি কার্ড দেখাই এবং আমিও তার আইডি কার্ড দেখি।

তারা আমার আইডি কার্ড নিতে চাইলে আমি তাদেরকে বাধা দেই। পরবর্তীতে তারা আমাকে বাসের দ্বিতীয় তলায় নিয়ে অনেক অপ্রাসঙ্গিক কথাবার্তা বলে। এরপর ঢাবির ভিসি চত্তরে আমাকে বাস থেকে নামিয়ে বেধড়ক মারধর করে। আমি তাদেরকে মারধরে বাধা দিয়ে প্রক্টর বরাবর অভিযোগ করার কথা বললে তারা আমাকে আরোও বেশি করে মারধর করে। ভিসি চত্তরে তখন অনেক শিক্ষার্থী ছিল কিন্তু কেউ এগিয়ে আসেনি। পরবর্তীতে আমি প্রক্টর বরাবর লিখিত অভিযোগ দিলে প্রক্টর স্যার আমাকে এ ব্যাপারে আশ্বাস দেন।

এ ব্যাপারে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক গোলাম রাব্বানী ক্যারিয়ারটাইমস২৪.কমকে বলেন, আমি অভিযোগপত্র টি পেয়েছি এবং যথারীতি কাজ শুরু হয়ে গেছে। বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ম অনুযায়ী যে ব্যবস্থা নেওয়া যায় সেটি নেয়া হবে। অবশ্যই অপরাধী কোন ছাড় পাবে না এবং এর দৃষ্টান্তমূলক কঠিন সাজা দেয়া হবে।

চৈতালী বাস কমিটির সভাপতি মুশফিকুর রহমান ধ্রুব বলেন, আমি এ ঘটনা বিস্তারিত জানিনা। এমন ঘটনা যেন না ঘটে সেজন্যে আমি কয়েকদিন আগেও নোটিশ দিয়েছিলাম। কিন্তু কেন এমন হলো জেনে আমাদের বাস কমিটির পক্ষ থেকে অবশ্যই ব্যবস্থা নিব।