ঢাকা, বুধবার, ২৭ মে ২০২০

ছাত্র অধিকার পরিষদের করোনা তহবিল: এখন পর্যন্ত জমেছে ৭ লাখ টাকা

:: সিটি রিপোর্ট || প্রকাশ: ২০২০-০৪-০৭ ২১:০৯:৩৭

করোনাভাইরাস মোকাবেলায় বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার পরিষদ জরুর তহবিল গঠন করেছে।আজ মঙ্গলবার পর্যন্ত এই তহবিলে প্রায় ৭ লাখ টাকার মত জমা হয়েছে বলে জানিয়েছেন সংগঠনটির যুগ্ম আহ্বায়ক রাশেদ খান।

সংগঠনটির পক্ষ থেকে জানানো হয়,  করোনা ভাইরাস (কোভিড ১৯) বাংলাদেশে সংক্রমিত হওয়ার পর থেকে ”জরুরি তহবিল” গঠন করে কাজ করে যাচ্ছে বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদ। গত ২০শে মার্চ থেকে শুরু হওয়া তহবিল সংগ্রহের কাজটি এখনো চলমান রাখা হয়েছে।

ছাত্র অধিকার পরিষদের জরুরি তহবিলে আজ পর্যন্ত প্রায় ৭ লাখ টাকার মত জমা হয়েছে এবং প্রতিনিয়ত তহবিলে টাকা জমানোর কাজ করে যাচ্ছে সংগঠনের সকল নেতা কর্মীরা। কেন্দ্রীয় পরিষদ ছাড়াও সংগঠনটির জেলা, উপজেলা, ইউনিয়ন এবং বিভিন্ন কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ের শাখা কমিটিও নিজেদের মত করে তহবিল সংগ্রহ করে যাচ্ছে।

সংগঠনের অফিসিয়াল প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে ২০শে মার্চ এই জরুরি তহবিল সংগ্রহের কাজ শুরু হয়। বিকাশ, রকেট ও নগদ টাকা দিয়ে সহায়তা করছেন সংগঠনের শুভাকাঙ্ক্ষীরা নিশ্চিত করেছেন সংগঠনের আহবায়ক হাসান আল মামুন। এছাড়াও সংগঠনটি ফেসবুক ফান্ড রাইজিং ইভেন্ট” Corona Crisis: Relief Fund for Bangladesh” এর মাধ্যমে অর্থ সংগ্রহের চেষ্টা করছে। সেখানে বাংলাদেশী প্রবাসী ভাই-বোনেরা সহায়তা করছেন যোগ করেন হাসান আল মামুন।

দেশের ৬৪ জেলায় ত্রাণ সহায়তা কার্যক্রম হাতে নিয়েছে সংগঠনটি। ইতোমধ্যে ৪০টি মত জেলায় কয়েক ধাপে ত্রাণ সহায়তা কার্যক্রম পরিচালনা করেছে। বাকি জেলা গুলোতে প্রস্তুতি গ্রহন করা হচ্ছে সেখানে কিছু দিনের মধ্যেই কার্যক্রম পরিচালনা করবে বলে জানান সংগঠনের নেতারা।

সংগঠনটি প্রায় ৩০০০ পরিবারকে সরারসি ত্রাণ সহায়তা প্রদান করেছে এতে প্রায় ৮ লাখ টাকার মত খরচ হয়েছে। ত্রাণ সহায়তা মধ্যে ছিলো চাল,ডাল, আলু, তেল, পেয়াঁজ, লবণ ও সাবান সহ নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি। সংগঠনের নেতৃবৃন্দ সরারসরি অসহায়, দুস্থ ও নিম্ন আয়ের লোকদের বাড়িতে বাড়িতে গিয়ে ত্রাণ পৌঁছে দেওয়ার ব্যবস্থা করে।

এছাড়াও গণস্বাস্থ্যের সহায়তায় ও ছাত্র অধিকার পরিষদের তত্ত্বাবধানে ঢাকায় ও নারায়ণগঞ্জে প্রায় ৭৫০টি পরিবারকে প্রথম পর্যায়ে ১ মাসের খাদ্য সহায়তা প্রদান করা হয়েছে যা আগামী ৬ মাস অব্যাহত থাকবে বলে জানান সংগঠনের যুগ্ম আহবায়ক ও ডাকসু ভিপি নুরুল হক নুর

পরিষদের আরেক যুগ্ম আহবায়ক রাশেদ খানের সার্বিক তত্ত্বাবধানে মধ্যবিত্ত পরিবারকে, যারা সাহায্যের জন্য রাস্তায় লাইনে দাড়াতে পারে না তাদেরকে সহায়তা করার জন্য একটি ক্যাম্পেইন পরিচালনা করা হচ্ছে। যেখানে ডোনার সরাসরি মধ্যবিত্ত পরিবারকে সহায়তা করেন। রাশেদ খান জানান, আমরা ডোনার ও সাহায্য গ্রহীতার মধ্যে মধ্যস্থতার কাজ করছি। এখানে সাহায্য গ্রহীতা পরিবারের সকল তথ্য গোপন রাখা হয়। এই ক্যাম্পেইনের মাধ্যমে এখন পর্যন্ত প্রায় শতাধিক মধ্যবিত্ত পরিবারকে সহায়তা করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

অপরদিকে কেন্দ্রীয় পরিষদের সহায়তায় সংগঠনটির ঢাকা মহানগর ও সম্মিলিত বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় শাখার নেতৃবৃন্দ প্রতিরাতে প্রায় ২০০ জন নিম্ন আয়ের ব্যক্তিকে রান্না করা খাবার ঢাকার বিভিন্ন স্থানে বিতরণ করা হচ্ছে বলে জানায় ডাকসু ভিপি নুর।

তিনি আরও জানান, আমরা মোট ২০,০০০ পরিবারকে সহায়তা করার লক্ষ্য নির্ধারণ করেছি। এতে ব্যয় ধরা হয়েছে প্রায় ১ কোটি টাকা। ছাত্র সংগঠনের পক্ষে এত টাকার ব্যয়বার বহন করা কষ্টসাধ্য বিধায় আমরা সমাজের ধনাঢ্য ও উচ্চবিত্তদের সার্বিক সহায়তা কামনা করছি।