ঢাকা, সোমবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০

মানুষের কথায় কান না দিয়ে শুরু করে দিন, সফলতা আসবেই

:: আসিফ খান || প্রকাশ: ২০২০-০৬-১৭ ২০:০১:২০

ভ্রমণ করতে কার না ভালো লাগে? এতো সুন্দর একটি পৃথিবীর কত জায়গা রয়েছে যেখানে গেলে আর ফিরে আসতে ইচ্ছে হয়না। ইচ্ছে হয়না আর ঘরে ফিরতে৷ এই ঘুরে বেড়ানোর মাধ্যমেও যদি আবার হয় অর্থ উপার্জন তাহলে তো কথাই নেই।

বলছিলাম মো: আরাফ ইনতিসার এর কথা। তার জন্ম কুষ্টিয়াতে হলেও তিনি ফরিদপুর এবং খুলনা জেলা স্কুল থেকে মাধ্যমিক শেষ করেছেন। এরপর ঢাকার সরকারি বিজ্ঞান কলেজ থেকে উচ্চমাধ্যমিক শেষ করেন। তিনি বর্তমানে আহসানুল্লাহ ইউনিভার্সিটি অফ সায়েন্স এন্ড টেকনোলজিতে দ্বিতীয় বর্ষ দ্বিতীয় সেমিস্টারে টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং-এ পড়াশোনা করছেন। তার বেড়ে ওঠা মফস্বলে হলেও তিনি এখন ঢাকায় থাকছেন।

ইতিমধ্যেই তিনি বাংলাদেশের যত সুপরিচিত বা অল্পপরিচিত ভ্রমণের জায়গা রয়েছে সব জায়গা ঘুরে ফেলেছেন। এবার পা রেখেছেন দেশ ছাড়িয়ে দেশের বাহিরে। দেখতে চান সারাবিশ্বের সৌন্দর্য। এরই অংশ হিসেবে তিনি ভারতের মেঘালয় এবং সিকিম প্রদেশে ভ্রমণ করেছেন। করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে ইন্দোনেশিয়ার বালি দ্বীপ এবং শ্রীলঙ্কা যাওয়ার পরিকল্পনা রয়েছে তার।

ভ্রমণ করার পাশাপাশি তিনি সেসব ভিডিও করে রাখছেন। ভ্রমণের সকল ভিডিও তিনি ভিডিও শেয়ারিং সাইট ইউটিউবে শেয়ার দিচ্ছেন এবং খুব অল্প সময়েই সুনাম ছড়িয়েছেন। জিতে নিয়েছেন বাংলাদেশ ট্রাভেল টিউবারস গ্রুপে “বেস্ট ইয়াং কন্টেন্ট ক্রিয়েটর এওয়ার্ড-২০১৯”। তার ভিডিও ৩০ হাজারেরও অধিক মানুষ নিয়মিত দেখেন এবং ১৪ লক্ষ ৬১ হাজারের অধিকবার তার ভিডিও দেখা হয়েছে। ইউটিউব থেকেও তিনি অর্থ উপার্জন শুরু করেছেন। ভ্রমণ বিষয়ক বিভিন্ন দিক নিয়ে তিনি কথা বলেছেন ক্যারিয়ারটাইমস২৪.কম এর সাথে। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি-আসিফ খান

ক্যারিয়ারটাইমস২৪.কম: ভ্লগিংয়ের ক্ষেত্রে আপনার অনুপ্রেরণা কে?

মো: আরাফ ইনতিসার: আমি নিয়মিত “লস্ট লেব্লাঙ্ক” আর “কারা এন্ড নেট” এই দুইজনের ভ্লগ দেখতাম। কিভাবে আমি ভ্লগিং শুরু করেছি এটা যদি আমাকে জিজ্ঞাসা করেন তাহলে আমি আমার অনুপ্রেরণা হিসেবে বলব আমার বড়ভাই রাসিফ শফিক ভাইয়ের কথা। যিনি “পেটুক কাপল” ইউটিউব চ্যানেলের কন্টেন্ট ক্রিয়েটর। ভাইয়া ভ্লগিং শুরু করার পরেই আমার জিনিসটা মাথায় আসছে। মনে হয়েছ, ভাইয়া যেহেতু ফুড ভ্লগ করছে আমি যখন ঘোরাফেরা করি তখন হয়তো আমি আমার স্মৃতিগুলো সংরক্ষণ করতে পারব। এজন্য আমি এই এদেরকেই আমার অনুপ্রেরণা মনে করি।

ক্যারিয়ারটাইমস২৪.কম: ঘুরে বেড়ানোর সাথে ভিডিও করার বিষয়টি কেনো মনে হলো?

মো: আরাফ ইনতিসার: মূলত আমি ভিডিও ভ্লগিং করার অনেক আগ থেকেই ট্রাভেল করি এবং আমি ছোটবেলা থেকেই ঘোরাফেরা করতে অনেক পছন্দ করি। মূলত আমার স্মৃতি সংরক্ষণ করে রাখার জন্যই আমি এই ভিডিও করাটা শুরু করেছিলাম। আর আমি চেয়েছিলাম যে আমার ঘোরাফেরার অভিজ্ঞতা থেকে অন্য কেউ যদি উপকৃত হয় তাহলে এটাই হবে আমার ভিডিও করার সার্থকতা। কিন্তু কখনোই ভাবিনি যে আমি এত ভাল রেসপন্স পাবো। আলহামদুলিল্লাহ সবাই অনেক ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গিতে ব্যাপারটা নিয়েছে। সবাই আমার ভিডিও অনেক পছন্দ করছে। এজন্য আমি দর্শকদের কাছে অনেক কৃতজ্ঞ।

ক্যারিয়ারটাইমস২৪.কম: আপনার পরিবার থেকে সহায়তা পান কেমন?

মো: আরাফ ইনতিসার: হ্যাঁ, আমার পরিবার আমাকে ছোটবেলা থেকেই অনেক সাহায্য করে। তারা কখনো কোনো কিছুর জন্য আমাকে নিষেধ করেনি। আমি যখন যেটা করতে চেয়েছি আমাকে সেটাই করতে দিয়েছে। তারা জানে যে আমি ঘুরতে খুবই পছন্দ করি তাই আমাকে কখনোই তারা ঘুরতে বাধা দেয়নি। সব সময় আমাকে অনুপ্রেরণা দিয়েছে এবং আমি যখন ভ্লগিং শুরু করেছি আমার পুরো পরিবার আমার ভিডিওগুলো একসাথে দেখেন। তারা আমার ভিডিওগুলো অনেক উপভোগ করেন। আমার যে চাচা আছে সে আমাকে বলে যে, আমরা তো ঘুরতে পারিনি তোমার চোখ দিয়ে আমরা যেন বিশ্বটাকে দেখতে পারি। তাই আমার ফ্যামিলি আমাকে অনেক বেশি অনুপ্রেরণা দেয় এবং অনেক বেশী উৎসাহ দেয়।

ক্যারিয়ারটাইমস২৪.কম: আপনি ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ছেন। ঘোরাঘুরিতে শিক্ষায় ব্যাঘাত ঘটে না?

মো: আরাফ ইনতিসার: না, আমার শিক্ষায় কোনো ব্যাঘাত ঘটছে না। আমার বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ালেখার প্রচুর চাপ থাকে। আমার বিশ্ববিদ্যালয়ের একটা ভালো দিক হচ্ছে, আমাদের যখন পরীক্ষা শেষ হয়ে যায় তখন আমরা দুই মাসের মতো একটা সেমিস্টার ব্রেক পাই। আর আমরা প্রত্যেক সেমিস্টারে একটি মিড ব্রেক পাই সাত দিনের মতো। আমি যখনই ছুটি পাই তখনই দেশ ও দেশের বাহিরে কোন না কোন জায়গায় ভ্রমণ করার চেষ্টা করি। আমি যখন কোন জায়গায় ভ্রমণ করি তখন সেই জায়গাটা পুরোপুরি ঘুরে ফেলার চেষ্টা করি। দেখা যায় যে, অনেক সময় আমি কোন একটা ট্রিপে গেলে ৬ থেকে ৭ দিন বা তিন থেকে চারদিন এরকম সময় নিয়ে ট্যুর দিই। ফলে সময় বেশি পাওয়ায় আমার বিষয় ভিত্তিক ভিডিও করা হয়ে যায়। যেহেতু আমি ছুটিতেই ভ্রমণ করি সেহেতু আমার পড়ালেখায় তেমন একটা বেশি ব্যাঘাত ঘটে না। আমি চেষ্টা করি উভয়টিই ঠিক রাখার।

ক্যারিয়ারটাইমস২৪.কম: ভিডিও তৈরির ক্ষেত্রে কোন প্রতিবন্ধকতা রয়েছে কিনা? থাকলে সেটি কী?

মো: আরাফ ইনতিসার: হ্যাঁ, কিছু প্রতিবন্ধকতা রয়েছে। বাংলাদেশের মানুষ এখনো ট্রাভেল ভ্লগিং এর বিষয়ে ততটা অভ্যস্ত না। আমাদের দেশের মানুষ যে জিনিসটা দেখে অভ্যস্ত সেটা হচ্ছে ট্রাভেল গাইড ভিডিও। “ট্রাভেল গাইড ভিডিও” এবং “ট্রাভেল ভ্লগিং” এদুটো আলাদা বিষয়। ট্রাভেল গাইড হচ্ছে আপনি একটা জায়গায় কিভাবে যাবেন এবং ওখানে যেয়ে কি করবেন এসব নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়। অপরদিকে ট্রাভেল ভ্লগ হচ্ছে আমি একটি জায়গায় যেয়ে একদম বাস্তবে কি করছি, কি করছি না, কি কি সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছি এই জিনিসগুলো নিয়ে ভিডিও বানানো হয়। হয়তো মানুষ এখনো এই জিনিসটা সেভাবে গ্রহণ করতে পারেনি। আমার মনে হয় ভবিষ্যতে ইউটিউবের এই সেক্টরটি বাংলাদেশে খুব জনপ্রিয় হবে। হয়তো একটা সময় ট্রাভেল ভ্লগিং সেক্টর টা আরও উন্নত হবে। আমার ইচ্ছা আছে ট্রাভেল ভ্লগিং নিয়ে বাংলাদেশে অনেক দূর কাজ করার।

ক্যারিয়ারটাইমস২৪.কম: ভ্রমণ করতে গিয়ে কোন অন্যায় চোখে পড়েছে কিনা?

মো: আরাফ ইনতিসার: ভ্রমণ করতে গিয়ে অনেক সময় অনেক অন্যায় চোখে পড়েছে। সেগুলো নিয়ে আমি আমার ভিডিওতে প্রতিবাদও করেছি। কিছুদিন আগেই আমি যখন শ্রীমঙ্গল গিয়েছিলাম সেখানকার চা বাগানের শ্রমিকরা তাদের একজনের সাথে আমি কথা বলেছিলাম। সে আমাকে জানিয়েছিল যে, তারা যে কাজটা করে সেই কাজের তুলনায় তাদের মজুরি অনেক কম দেওয়া হয়। এ ধরনের মানুষের সাথে আমাদের কথা হয় অনেকের জীবনের ইতিহাস আমরা জানতে পারি। গল্পের মাধ্যমে অনেক অন্যায়ের কথা জানতে পারি এবং যেগুলো আমাদের সামনে আসে, চেষ্টা করি জিনিসটাকে তুলে ধরার। আবার অনেক সময় দেখা যায় যেকোন একটা জায়গায় গেলাম সেখানে সিন্ডিকেট করে কোন একটা জিনিসের দাম অনেক বেশি করে দেয়া হচ্ছে। তখন আমি চেষ্টা করি সেসব অন্যায় আমার ভিডিওতে তুলে ধরার এবং সম্ভব হলে প্রতিবাদ করার।

ক্যারিয়ারটাইমস২৪.কম: বাংলাদেশ ভ্রমণ শিল্প নিয়ে আপনার মতামত কি? কোন সংস্কার প্রয়োজন কিনা?

মো: আরাফ ইনতিসার: বাংলাদেশের অনেক সম্ভাবনা রয়েছে ভ্রমণের ক্ষেত্রে। অনেক অনেক অসাধারন কিছু জায়গা রয়েছে যেগুলো আমরা এখনো ঠিকমতো সংরক্ষণ করতে পারিনি। আবার অনেক সময় দেখা যায়, আমরা যখন কোন জায়গায় ঘুরতে যাচ্ছি সেই জায়গাটা নোংরা করে ফেলছি। আমার মনে হয় আমাদের এই জায়গাটায় একটু কাজ করা উচিত। আমরা যখন কোন জায়গায় যাব সে জায়গাটা অবশ্যই পরিষ্কার রাখব যেন দেশের বাহির থেকে যারা আসবে তাদের কাছে জায়গাটি আরও আকর্ষণীয় হয়ে ওঠে। এই বিষয়টি আমাদের সকলেরই দায়িত্ব। বাংলাদেশ কিন্তু অসাধারণ একটি জায়গা ভ্রমণ করার জন্য। আমরা অধিকাংশই শুধুমাত্র কক্সবাজার, সাজেক এবং রাঙামাটি এগুলোই চিনি। কিন্তু এর বাইরেও অসাধারণ অনেক জায়গা রয়েছে। আমাদের উচিত সেগুলো মানুষের কাছে তুলে ধরা। আমরা যারা ট্রাভেল ভ্লগার রয়েছি বিশেষ করে ইউটিউব ভিত্তিক যারা ট্রাভেল ভ্লগ নিয়ে কাজ করি, বাংলাদেশ সরকারের এবং বিভিন্ন কোম্পানির উচিত স্পন্সর করা। দেশটাকে বিশ্বের বুকে ফুটিয়ে তুলতে আমাদেরকে উৎসাহিত করা। আমার মনে হয় অন্যান্য দেশের তুলনায় বাংলাদেশে এই সুযোগ-সুবিধা কম রয়েছে। আমার মনে হয় এই জিনিসটাও সংস্কার করার প্রয়োজন।

ক্যারিয়ারটাইমস২৪.কম: একজন মানুষের কেন ভ্রমণ করা উচিৎ বলে আপনি মনে করেন?

মো: আরাফ ইনতিসার: আমি আমার কথাটা বলি, আমি ভ্রমণ থেকে যেসব শিক্ষা পেয়েছি সেগুলোই বলি। যখন আমি ভ্রমণ করি তখন একটা মানুষকে কিন্তু অনেক রকম সমস্যার সাথে নিজেকে মানিয়ে নিতে হয়। যখন কেউ ভ্রমণ করে তখন তার অনেক রকম মানুষের সাথে মিশতে হয় এবং অনেক রকম মানুষের সাথে যেকোনো পরিস্থিতি সামাল দিতে হয়। এসময় নতুন নতুন সংস্কৃতির সাথে, অনেক রকম মানুষের সাথে পরিচিত হওয়ার সুযোগ থাকে এবং নিজের অভিজ্ঞতার ভান্ডার বাড়ানো যায়। পৃথিবীর সকল কিছুর তুলনায় একজন ব্যক্তি যে খুব ক্ষুদ্র এই বিষয়টি বুঝে আসে ফলে মানুষ অনেক নমনীয় হতে শেখে। তাই আমার কাছে মনে হয় নিজেকে ভালো মানুষ হিসেবে গড়ে তোলার জন্যে ভ্রমণ করা উচিৎ।

ক্যারিয়ারটাইমস২৪.কম: আপনার কাছে সবচেয়ে সুন্দর লেগেছে বাংলাদেশের কোন জায়গাটি এবং কেন সুন্দর লেগেছে?

মো: আরাফ ইনতিসার: বাংলাদেশের সবচেয়ে সুন্দর লেগেছে আমার কেছে দুইটি জায়গা। একটি হচ্ছে বান্দরবান আরেকটি হচ্ছে সেন্ট মার্টিন বা নারিকেল জিঞ্জিরা বা দারুচিনি দ্বীপ।

বান্দরবান সুন্দর লাগার কারণ হচ্ছে, বান্দরবান এমন একটা জায়গা যেখানে প্রতিটি পদক্ষেপে অ্যাডভেঞ্চার এবং অসংখ্য রহস্য লুকিয়ে রয়েছে। কেউ যদি সম্পূর্ণ ঘুরে শেষ করতে পারে তাহলে তার বাংলাদেশের সৌন্দর্য সম্পর্কে একটি ভালো ধারণা হয়ে যাবে। বান্দরবানে পাহাড়-পর্বত এবং ঝরনা থেকে শুরু করে প্রায় সবকিছুই রয়েছে।

অপরদিকে, কেউ যদি একদম রিলাক্স হয়ে কয়েকটা দিন কাটাতে চায় সেক্ষেত্রে সেন্ট মার্টিন খুব অসাধারণ একটি জায়গা। আমার মতে, বাংলাদেশের সবচেয়ে সুন্দর একটি জায়গা। আমার কাছে রিল্যাক্স করার জন্যে জায়গাটি এতো ভালো লেগেছে যে আমি বেশ কয়েকবার সেন্টমার্টিনে গিয়েছি।

ক্যারিয়ারটাইমস২৪.কম: ভ্রমণ বিষয়ক কোন স্মরণীয় ঘটনা থাকলে বলুন।

মো: আরাফ ইনতিসার: ভ্রমণ বিষয়ক স্মরণীয় ঘটনা অনেক রয়েছে যা সংক্ষেপে বলা সম্ভব না। আমি আমার ভিডিওতে সবসময় চেষ্টা করি আমার যেই মুহূর্তগুলো আছে সেগুলো আমার দর্শকদের সাথে ভাগ করে নেওয়ার। তবে কিছু স্মরণীয় ঘটনা থেকেই যায় যেগুলো চিরকাল স্মৃতির রেখায় দাগ টেনে দেয়। এমন একটা স্মৃতি রয়েছে সিকিম ভ্রমণ নিয়ে। কারণ সিকিমে মজা করে বন্ধুদের সাথে যেই সফর দিয়েছিলাম ওই সফরের প্রতিটা গল্প প্রতিটা দিন আমার কাছে অমলিন হয়ে থাকবে। সংক্ষেপে এসব স্মৃতি বলা সম্ভব নয়। আমার প্রতিটা ভ্রমণেই কিছু না কিছু স্মৃতি থাকে যেগুলো ভুলে যাওয়ার মতো নয়।

ক্যারিয়ারটাইমস২৪.কম: আপনার ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা কি?

মো: আরাফ ইনতিসার: ১০০ টি দেশ ঘুরে ভিডিও বানাব। এরপর সার্বক্ষণিক যতগুলো সম্ভব দেশ ভ্রমণ করব পাশাপাশি কাজ করবো। আমার ইচ্ছা হচ্ছে বিভিন্ন দেশ ভ্রমণ করব এবং ভ্রমণের মধ্যেই কাজকর্ম করব ফলে সেখান থেকে আমার জীবিকা নির্বাহ করব যেটাকে ডিজিটাল নোম্যাড বলা হয়। বাংলাদেশের কেউ এটা করে কিনা জানিনা আবার করলেও ভ্লগিং করে কিনা জানিনা।

ক্যারিয়ারটাইমস২৪.কম: ভ্রমণ এবং ভ্লগিং-এর পাশাপাশি কি করতে পছন্দ করেন?

মো: আরাফ ইনতিসার: ভ্রমণ এবং ভ্লগিং এর পাশাপাশি আমি গেম খেলতে খুবই পছন্দ করি সেটা অনলাইন ভিডিও গেম হতে পারে বা অফলাইন (ক্রিকেট, টেবিল টেনিস) গেমও হতে পারে। মোটকথা স্পোর্টস আমার খুব ভালো লাগে।

ক্যারিয়ারটাইমস২৪.কম: ভ্রমণ পিপাসুদের নিয়ে কিছু বলুন?

মো: আরাফ ইনতিসার: আমরা যে জায়গায় যাইনা কেন সে জায়গার পরিবেশ যেন আমরা রক্ষা করি এবং পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখি। কারণ আমরা যদি জায়গাগুলো পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন না রাখি ভবিষ্যতে যারা ওসব জায়গাতে ভ্রমণ করতে যাবেন তাদের কাছে হয়তো ওই জায়গাটা নোংরা থাকার কারণে আকর্ষণীয় মনে হবে না। ফলে ধীরে ধীরে আমাদের দেশের হোক এবং দেশের বাইরের হোক এটা ভ্রমণের উপরে নেতিবাচক একটা প্রভাব পড়বে। তাই ভ্রমণ পিপাসুদের জন্য আমার একটাই কথা যেখানে যাব পরিবেশ সুন্দর রাখবো পরিষ্কার রাখব।

ক্যারিয়ারটাইমস২৪.কম: যারা ভ্লগিং করতে চায় তাদের উদ্দেশ্যে আপনার পরামর্শ কী?

মো: আরাফ ইনতিসার: কে কি বলল, কে কি ভাবল এগুলা নিয়ে কখনোই চিন্তিত না হওয়া। আবার অনেকে মনে করেন যে ভ্লগিং করতে হলে অনেক মূল্যবান ডিভাইস, গিয়ার, ক্যামেরা ইত্যাদি প্রয়োজন। কিন্তু আমি বলব আপনার কাছে যেটিই থাকুক সেটি দিয়েই শুরু করুন। একবার যদি শুরু হয়ে যায় তাহলে দেখবেন একা একাই এগিয়ে যাচ্ছেন। আমি বলব শুরু করাটাই হচ্ছে মূলত চ্যালেঞ্জ। একবার শুরু করার পর বুঝে যাবেন আপনাকে কি করতে হবে, কি করতে হবে না। কি করলে কাজটি আরও ভালো হবে। তাই দেরি না করে নিজের মত নেমে পড়ুন, নিজের মনকে প্রাধান্য দিন। নিজে কি হতে চান সেদিকে মন স্থির করুন শুভ কামনা রইল।

ক্যারিয়ারটাইমস২৪.কম: পাঠকদের উদ্দেশ্যে কিছু বলুন।
মো: আরাফ ইনতিসার: পাঠকদের মধ্যে যারা ঘুরাঘুরি করতে চান কিন্তু ঘুরাঘুরি করার সাহস পাচ্ছেন না আবার অনেকে ঘোরার জন্য পার্টনার পাচ্ছেন না। আমি তাদের উদ্দেশ্যে একটা কথাই বলবো যে, আপনি যখন কোন একটা কাজ করবেন বা করতে চান সেই কাজটা করার জন্য যদি আপনার মন তীব্রভাবে ব্যাকুল থাকে তাহলে আপনাকে সেই কাজ করা থেকে কেউ আটকাতে পারবেনা। আপনি যে কাজটা করতে ভালোবাসেন সেই কাজটা যদি করেন তাহলে সেটি মানুষের কাছে আরো গ্রহণযোগ্যতা পাবে। মানুষজনের কাছে আরও ভালো লাগবে। সেই কাজটা করতে আপনি কখনোই বিরক্ত হবেন না। পাঠকদের মধ্যে আপনারা যারা ঘুরতে ভালোবাসেন তারা সকল চিন্তা ফেলে দিয়ে সাহস করে একবার বেরিয়ে পড়ুন তাহলে দেখতে পাবেন পৃথিবীটা কত সুন্দর।

ক্যারিয়ারটাইমস২৪.কম: ক্যারিয়ারটাইমস২৪.কম শিক্ষা ও ক্যারিয়ারকে প্রাধান্য দিয়ে কনটেন্ট তৈরির চেষ্টা করে। আমাদের প্রতিবেদন কখনো পড়ার সুযোগ হয়েছে? আমাদের সম্পর্কে কিছু বলতে চান?

মো: আরাফ ইনতিসার: ক্যারিয়ারটাইমস২৪.কমকে প্রথমেই ধন্যবাদ দিতে চাই আমার সাক্ষাৎকারটি নেয়ার জন্য। আপনাদের জন্য রইল শুভকামনা। আপনারা খুব অসাধারণ কাজ করছেন। দেশের অনলাইন পোর্টালগুলোর মধ্যে আপনারা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবেন সেই প্রত্যাশা রইলো।

ক্যারিয়ারটাইমস২৪.কম: আমাদের সময় দেয়ার জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ।

মো: আরাফ ইনতিসার: ক্যারিয়ারটাইমস২৪.কমকেও অসংখ্য ধন্যবাদ। আপনাদের উত্তরোত্তর মঙ্গল কামনা করছি।