ঢাকা, সোমবার, ১০ আগস্ট ২০২০

মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচন: ট্রাম্পের দলে দুই সুর

:: আন্তর্জাতিক ডেস্ক || প্রকাশ: ২০২০-০৭-৩১ ১৫:৩৭:৫৫

মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচন-২০২০ পেছানোকে কেন্দ্র করে ডোনাল্ড ট্রাম্পের রিপাবলিকান পার্টির মধ্যেই দুই ধরনের সুর তৈরি হয়েছে। খবর রয়টার্স।

নির্বাচনের মাত্র তিন মাস আগে এসে ট্রাম্প এর আগে মেইল ইন ভোটিং এ তার অনাস্থা এবং কোভিড-১৯ বৈশ্বিক মহামারির অজুহাতে নির্বাচন পেছানোর দাবি তুলেছিলেন।

এদিকে, প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের এই দাবিকে উড়িয়ে দিয়েছেন সিনেটে সংখ্যাগরিষ্ঠ রিপাবলিকান পার্টির শীর্ষ নেতারা।

রিপাবলিকান পার্টির মিচ ম্যাককনেল এবং কেভিন ম্যাককার্থি ৩ নভেম্বর অনুষ্ঠেয় প্রেসিডেন্ট নির্বাচন স্থগিতের সম্ভাবনা উড়িয়ে দিয়েছেন বলে জানিয়েছে বার্তাসংস্থা রয়টার্স।

অন্যদিকে যুক্তরাষ্ট্রের সংবিধান অনুসারে, নির্বাচন পেছানোর এখতিয়ার প্রেসিডেন্টের নেই। কংগ্রেসের দুই কক্ষের অনুমোদন সাপেক্ষে সংবিধান সংশোধনের মাধ্যমে কেবল নির্বাচন পেছানোর সম্ভাবনা থাকে।

পাশাপাশি, মেইল ইন ভোটিং ব্যবস্থায় কারচুপি, ফলাফল জালিয়াতি ও বিদেশিদের প্রভাব বিস্তারের আশংকার কথা বলে সম্ভাবনা থাকতে পারে উল্লেখ করে নভেম্বরের নির্বাচন পিছিয়ে দেওয়া যায় কি না – টুইটারে সে আলাপ তুলেছিলেন ট্রাম্প।

তার জবাবে রিপাবলিকান পার্টির শীর্ষ নেতা ও সিনেট সদস্য ম্যাককনেল বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্রে প্রেসিডেন্ট নির্বাচন পিছিয়ে দেওয়ার নজির নেই।

স্থানীয় একটি সংবাদমাধ্যমকে তিনি জানিয়েছেন, যুদ্ধ-মন্দা-গৃহযুদ্ধ কোনো কিছুতেই নির্বাচন থেমে থাকেনি। এবারও নিশ্চিত কোনো না কোনো উপায় খুঁজে বের করবো। নির্বাচন পেছানোর সুযোগ নেই।

তার কথারই প্রতিধ্বনি শোনা গেছে প্রতিনিধি পরিষদের সংখ্যালঘু অংশের নেতা ম্যাককার্থির কণ্ঠেও।
নির্বাচন নির্ধারিত সময়েই হওয়া উঠিত – বলে তিনি মন্তব্য করেছেন।

পাশাপাশি, ট্রাম্পঘনিষ্ঠ হিসেবে পরিচিত প্রভাবশালী রিপাবলিকান লিন্ডসে গ্রাহামও নির্বাচন পিছিয়ে দেওয়ার চিন্তাকে ‘মোটেও ভালো কিছু নয়’ বলে মন্তব্য করেছেন।

তবে, মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও এ প্রসঙ্গে কোনো পক্ষ নিতে রাজি হননি।

অপরদিকে, ট্রাম্পের ক্যাম্পেইন মুখপাত্র হোগান গিডলি বলেছেন, প্রেসিডেন্ট কেবল সম্ভাবনার কথা বলেছেন। সুনির্দিষ্টভাবে কোনো প্রস্তাব হাজির করেননি, তিনি প্রস্তুত আছেন।

লক্ষণীয় ব্যাপার হলো, রাতে টুইটারে নির্বাচন পেছানোর দাবি তুললেও বিকেলে হোয়াইট হাউসের সংবাদ সম্মেলনে ট্রাম্প জানান – তিনিও নির্বাচন স্থগিতের পক্ষে নন। মেইল ইন ভোটিংয়ে স্বচ্ছতা নিশ্চিত করা যাবে না তার এমন আশঙ্কা হচ্ছে। তাই সেই কথা জানিয়েছেন তিনি।

তিনিও নির্বাচনে যাওয়ার জন্য মুখিয়ে আছেন। কিন্তু, একই সঙ্গে তিন মাস অপেক্ষার পর ব্যালট পেপার হারিয়ে গেছে এমনটা দেখতে চান না – বলেছেন ট্রাম্প।