ঢাকা, সোমবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০

৩৫ চাই: নতুন আশায় আন্দোলনকারীরা

:: শুভ্র অন্তিম || প্রকাশ: ২০২০-০৯-১০ ২১:২৯:৫৬

সরকারি চাকরিতে প্রবেশের বয়স বৃদ্ধির জন্য প্রায় এক দশক ধরে আন্দোলন করছে ছাত্র সমাজ। আন্দোলন দীর্ঘ থেকে দীর্ঘতর হলেও কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্য এখনো পূরণ হয়নি। তবে সরকারের পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান সরকারি চাকরিতে প্রবেশের ও অবসরের বয়সসীমা পুর্নবিন্যাসের সময় এসেছে বলে মন্তব্য করেছেন।

আর এই মন্তব্যের পর নতুন করে আশা দেখছেন আন্দোলনকারীরা।

তারা বলছেন, সরকারের গুরুত্বপূর্ণ একজন মন্ত্রী যখন বিষয়টির গুরুত্ব অনুধাবন করতে পারছেন; তাহলে আশা করা যায় শিগগিরই আমাদের দাবি পূরণ হবে।

আরও পড়ুন

সরকারি চাকরিতে প্রবেশের বয়স ৩৫ হতে পারে

জানা গেছে, সম্প্রতি জার্মান ভিত্তিক সংবাদ মাধ্যম ডয়েচে ভেলেকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেছেন, চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা বাড়িয়ে ৩৫ কিংবা ৪০ বছর করা যেতে পারে। এ ছাড়া অবসরের বয়সও ৬৫ করা যেতে পারে।

তার এই বক্তব্যের আলোকে ফেসবুক গ্রুপে চাকরিপ্রার্থীদের নিকট তাদের মতামত জানতে একটি পোলের আয়োজন করে একটি অনলাইন নিউজ পোর্টাল। পোলে অংশ নেয়া ৭২ শতাংশই চান সরকারি চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা ৩৫ বছর করা হোক। আর ১২ শতাংশ চান চাকরিতে প্রবেশের বয়স হোক ৩২ বছর।

পাঠকদের কাছে তাদের প্রশ্ন ছিল, পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেছেন, চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা বাড়িয়ে ৩৫ কিংবা ৪০ বছর করা যেতে পারে। চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা কত বছর হওয়া যুক্তিযুক্ত বলে আপনি মনে করেন?

এই পোলে প্রায় পাঁচশ’ জন তাদের মতামত জানিয়েছে। সেখানে চাকরিতে প্রবেশের বয়স ৩৫ বছর করার পক্ষে মত দিয়েছেন ৩৬৩ জন, যা মোট অংশগ্রহণকারীর ৭২ শতাংশের বেশি। আর ৩২ বছরের পক্ষে মত দিয়েছেন ৬৩ জন, যা মোট অংশগ্রহণকারীদের ১২ শতাংশেরও বেশি।

আরও পড়ুন

বয়সবৃদ্ধির আন্দোলন: নতুন প্লাটফর্মের ঘোষণা

এছাড়া চাকরিতে প্রবেশের বয়স ৪০ বছর চেয়েছেন ৩৪ জন। পোলে অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে যা প্রায় সাত শতাংশ। আর বিদ্যমান চাকরিতে প্রবেশের বয়স ৩০ বছরকেই যুক্তিযুক্ত মনে করছেন ২৬ জন, যা অংগ্রহণকারীদের পাঁচ শতাংশের বেশি। আজীবন চাকরিতে প্রবেশের সুযোগ চেয়েছেন সাত জন, যা মোট পোলে অংশ নেয়াদের প্রায় এক দশমিক ৪০ শতাংশ।

এদিকে, ক্যারিয়ারটাইমস২৪.কম এর পক্ষ থেকে অন্তত ১০ জন আন্দোলনকারীর সাথে কথা বলা হয়। তারা জানিয়েছেন, চলমান সঙ্কট বিবেচনায় নিয়ে চাকরিতে প্রবেশের বয়স ৩৫ বছরই যুক্তিযুক্ত সমাধান। পরিকল্পনা মন্ত্রী ঠিকই বলেছেন।

আরাফাতুল ইসলাম নামে একজন বলেন, সরকারের গুরুত্বপূর্ণ একজন মন্ত্রী যখন বিষয়টি নিয়ে কথা বলেছেন, তখন আমরা আশান্বিত হতেই পারি।

আয়েশা জাহান নামের একজন ৩৫ প্রত্যাশী বলেছেন, সময় বিবেচনায় ৩৫ বছর খুবই সঠিক চাওয়া। আমার বিশ্বাস সরকার আমাদের দাবির গুরুত্ব বুঝবে।

মিফতাহুল জান্নাত মনে করেন, সরকার পূর্বে বয়স বৃদ্ধির দাবি নাকচ করলেও নতুন করে ভেবে দেখবে।