ঢাকা, সোমবার, ২৬ অক্টোবর ২০২০

রাবির সাবেক শিক্ষার্থীকে ক্যাম্পাসে ঢুকতে গেইটম্যানের বাধা

:: রাবি প্রতিনিধি || প্রকাশ: ২০২০-০৯-২০ ২২:২৮:১৮

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) সাবেক দুই শিক্ষার্থীকে ক্যাম্পাসে প্রবেশ করতে দেয়নি গেইটম্যান। উল্টো তাদের সঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয়ের কাজলা গেইটে কর্তব্যরত গেইটম্যান ও পুলিশের বিরুদ্ধে অসদাচরণের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

রোববার (২০ সেপ্টেম্বর) বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর বরাবর লিখিত অভিযোগ দেন ওই দুই শিক্ষার্থী।

ভুক্তভোগীরা হলেন- ইংরেজি বিভাগের ২০১৩-১৪ সেশনের রিমন বানু এবং একই বিভাগের একই সেশনের জান্নাতুল ফেরদৌস।

এর আগে গত ১৭ সেপ্টেম্বর রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ও বর্তমান শিক্ষার্থীদের প্লাটফর্ম ‘রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় পরিবার’ নামক ফেসবুক গ্রুপে এ সংক্রান্ত একটি স্ট্যাটাস দেন রিমন। স্ট্যাটাসে তিনি সকলের পরামর্শ চান। সেখানে কয়েকজন প্রক্টর বরাবর লিখিত অভিযোগ দিতে বলেন। ওই স্ট্যাটাসের কমেন্টে আরো কিছু শিক্ষার্থী তাদের সঙ্গে গেইটম্যানের বিরুদ্ধে অসদাচরণের অভিযোগ করেন।

লিখিত অভিযোগে ভুক্তভোগীরা বলেন, ‘গত বুধবার (১৬ সেপ্টেম্বর) আমরা দুই বান্ধবী মিলে স্বাস্থ্যবিধি বজায় রেখে ক্যাম্পাসে হাঁটার উদ্দেশ্য কাজলা গেইটের দিকে যাই। গেইট এ পৌছার পরই সেখানকার কর্তব্যরত গেইটম্যান আমাদের দুজনকে ভিতরে যেতে নিষেধ করলে আমরা ফিরে আসতে উদ্যত হয়। ঠিক সে সময় কয়েকজন ছেলে-মেয়েকে বিনা বাধায় ক্যাম্পাসে ঢুকতে দেখে আমরা গেটম্যানকে সে বিষয়ে প্রশ্ন করলে গেইটম্যান আমাদের সাথে চরমভাবে দুর্ব্যবহার শুরু করে। এর প্রতিবাদ করলে গেইটম্যানরা কয়েকজন মিলে, তাদের মধ্যে দুইজন পুলিশ সদস্যসহ আমাদের নিয়ে নানান কুরুচিপূর্ণ কথাবার্তা বলে ও ক্রমাগত কটুক্তির মাধ্যমে আমাদের হেয় প্রতিপন্ন করে।’

লিখিত বক্তব্যে গত বুধবার (১৬ সেপ্টেম্বর) বিকেলে বিশ্ববিদ্যালয়ের কাজলা গেইটে কর্তব্যরত পুলিশ ও গেইটম্যানদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য প্রক্টরকে অনুরোধ জানান তাঁরা।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ও ছাত্র উপদেষ্টা (অতিরিক্ত দায়িত্বপ্রাপ্ত) অধ্যাপক লুৎফর রহমান বলেন, এ ঘটনায় জড়িত পুলিশ সদস্যদের যথাযথ শাস্তির জন্য ইতিমধ্যে মতিহার থানায় চিঠি দিয়েছি। আমি প্রাথমিকভাবে গেইটম্যানদের জিজ্ঞাসাবাদ করেছি, তবে তারা কেউ স্বীকার করেনি। প্রয়োজনে সিসিটিভি ফুটেজ দেখে শনাক্ত করে জড়িতদের শাস্তির আওতায় নিয়ে আসা হবে।

প্রক্টর আরও বলেন, পরবর্তীতে কোনো পুলিশ সদস্য বা নিরাপত্তা প্রহরী যাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক-বর্তমান যেকোনো শিক্ষার্থীদের সাথে এমন অসদাচরণ না করে সেজন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।